জুন মাসে সারাদেশে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩৬১ আহত ৩৪৮

জুন মাসে সারাদেশে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩৬১ আহত ৩৪৮

সুরমার ঢেউ সংবাদ : জুন মাসে সারাদেশে সংঘটিত ২৯৭টি সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন ৩৬১ জন এবং আহত হয়েছেন ৩৪৮ জন। নিহতদের মধ্যে রয়েছেন ৩২ শিশু ও ৫৭ নারী।
৫ জুলাই রবিবার রোড সেফটি ফাউন্ডেশন এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানিয়েছে। সংস্থাটি ৭টি জাতীয় দৈনিক, ৫টি অনলাইন নিউজপোর্টাল এবং ইলেক্ট্রনিক গণমাধ্যমের তথ্যের ভিত্তিতে প্রতিবেদনটি তৈরি করেছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, এসব দুর্ঘটনার মধ্যে এককভাবে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় বেশি প্রাণহানি ঘটেছে। ১০৩টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন ৯৪ জন। এছাড়া দুর্ঘটনায় ৭৬ জন পথচারী নিহত হয়েছেন। যানবাহনের চালক ও তার সহকারী নিহত হয়েছেন ৪৯ জন। আর, এ সময়ে ১১টি নৌ-দুর্ঘটনায় ৫৬ জন নিহত ও ২৩ জন নিখোঁজ হয়েছেন। ৬টি রেল দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন ৭ জন।
দুর্ঘটনায় ট্রাক যাত্রী ২৩, বাস যাত্রী ১২, পিকআপ যাত্রী ১০, কাভার্ডভ্যান যাত্রী ২, মাইক্রোবাস যাত্রী ৯, প্রাইভেটকার যাত্রী ১১, অ্যাম্বুলেন্স যাত্রী ৪, লরি যাত্রী ৩, সিএনজি যাত্রী ১২, ইজিবাইক-অটোরিকশা যাত্রী ৩৫, নসিমন-করিমন যাত্রী ২৩, ভটভটি-আলমসাধু যাত্রী ২৫, রিকশা ও রিকশাভ্যান যাত্রী ১৬ এবং বাইসাইকেল আরোহী ৬ জন নিহত হয়েছেন বলেও জানানো হয়।
গণমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্যের ভিত্তিতে তৈরী এ প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, নিহতদের মধ্যে ৮ জন শিক্ষক, ১ জন শিক্ষা কর্মকর্তা, ১ জন প্রকৌশলী, ২ জন স্বাস্থ্যকর্মী, ১ জন পুলিশ সদস্য, ১ জন গ্রাম-পুলিশ সদস্য, ১ জন বিজিবি সদস্য, ১ জন ইউপি মেম্বার, ২ জন স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা, ৪ জন মসজিদের ইমাম-মুয়াজ্জিন, ২ জন ব্যাংকার, ৭ জন স্থানীয় ব্যবসায়ী, ৯ জন পোশাক শ্রমিক, ৩ জন এনজিও কর্মী, ১১ জন সরকারি-বেসরকারি চাকরিজীবী এবং ৪৩ জন শিক্ষার্থী রয়েছেন।
ঢাকা বিভাগে ৬৪টি দুর্ঘটনায় ৮১ জন নিহত হয়েছেন- যা সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ও প্রাণহানি। সিলেট বিভাগে ১১টি দুর্ঘটনায় ১২ জন নিহত হয়েছেন যা- সবচেযে কম দুর্ঘটনা। একক জেলা হিসেবে সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ও প্রাণহানি ঘটেছে ময়মনসিংহে। এ জেলায় ১৫টি দুর্ঘটনায় ২১ জন নিহত হন। সবচেয়ে কম সড়ক দুর্ঘটনা পিরোজপুরে। এ জেলায় ১টি দুর্ঘটনায় নিহত ১ জন।
সড়ক দুর্ঘটনা ও প্রাণহানি গত মে মাসের তুলনায় জুন মাসে বেড়েছে। মে মাসে ২১৩টি দুর্ঘটনায় ২৯২ জন নিহত হয়েছিলেন। এ হিসাব অনুযায়ী জুন মাসে দুর্ঘটনা ৩৯ দশমিক ৪৩ শতাংশ এবং প্রাণহানি ২৩ দশমিক ৬৩ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *